কিভাবে অন্যদের থেকে একধাপ এগিয়ে থাকবেন? আসুন জানি…

আশা করি, সবাই ভালো আছেন। পড়ালেখায় অন্যদের থেকে একধাপ এগিয়ে থাকার জন্য কিছু ভিন্ন ধরনের কৌশল জানা দরকার । আজ কিছু ভিন্ন ধরনের কৌশল সম্পর্কে আলোচনা করা হবে ।
তাহলে শুরু করা যাক কথা না বাড়িয়ে …

১। রুটিন তৈরি করুন :

প্রতিদিন কি কি কাজ করা প্রয়োজন ? কি পরিমাণ সময় নিয়ে পরবেন তা একটি লিস্ট করুন । পাশাপাশি যাবতীয় কাজের একটি তালিকা তৈরি করুন এবং সেই অনুযায়ী রুটিন এর সময় সীমা নির্ধারণ করুন। রুটিন তৈরি করার সময় অবশ্যই খেয়াল রাখবেন একটি বিষয় তা হল যে বিষয় টি আপনি খুব কম বুঝেন বা খুব সহজে মনে রাখতে পারেন না , সেটা রুটিন এর সকাল দিক তাতে রাখুন । কেননা সকালের পরিবেশ খুব শান্ত ও মনোরম থাকে । তখন আপনার মনোযোগ কয়েক গুন বেড়ে যাবে , পাশাপাশি আপনি যদি সেই বিষয়টা কয়েক বার চেষ্টা করেন তাহলে খুব সহজেই বিষয় টি মনে রাখতে পারবেন।

২। নোট করতে শিখুন :

গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো নোট করে রাখতে পারেন তাহলে পরীক্ষার সময় তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে সময় ন্যস্ত না করেই খুব সহজে একপলক দেখে নিতে পারেন। অন্য দিকে, আপনার ভুলে যাওয়া কোন কিছু খুব সহজে মনে রাখতে পারবেন শুধু কিছু সময় দেখে নিলেই হবে । ক্লাস এ শিক্ষক যখন কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা করবে তখন সেখান থেকে কিছু পয়েন্ট নোট করে রাখুন । এর ফলে পরীক্ষার আগে আপনার অনেক জামেলা কমিয়ে দিবে ।

৩। বার বার লিখুন :

আমাদের মাঝে সবচেয়ে বেশি যেই বিষয় তা লক্ষ্য করা যায় সেটা হল আমরা লিখতে পছন্দ করি না।  যার ফল স্বরূপ , লেখার মাঝে ভুলের প্রবণতা বেড়ে যায় । এজন্য পরীক্ষায় আশানুরূপ ফলাফল পাওয়া সম্ভব হয় না। নির্ভুল হওয়ার জন্য বার বার লিখার প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য । বার বার লেখার ফলে আপনার ভুল হওয়ার সম্ভাবনা অনেকাংশে কমে যায় ।

৪। মোবাইল এ রেকর্ড করে শুনুন :

আমরা অনেকেই আছি যারা গান শুনতে ভালবাসি , কানে হেড ফোন লাগিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গান শুনেন । এতে করে আপনার সময় অপচয় হয় পাশাপাশি মস্তিস্কেও নানা চাপ সৃষ্টি করে । আপনার যে বিষয় তা খুব কম মনে রাখতে পারেন সেই বিষয় সময় মোবাইল এ রেকর্ড করে রাখতে পারেন এবং যখন অবসর সময় অতিবাহিত করবেন তখন সেটা মনোযোগ সহকারে শুনুন এবং পুনরায় শুনুন ।

৫। মোবাইলে অ্যালার্ম দিয়ে রাখুন :

হতে পারে আপনি অনেক ব্যস্ততার কারণে গুরুত্বপূর্ণ পড়ার বিষয় টি ভুলে যেতে পারেন । তাই মোবাইল ফোনে অ্যালার্ম ব্যবহার করুন এবং সঠিক সময়ে পড়তে বসুন । অ্যালার্ম সেট করার ফলে আপনার মূল্যবান সময় ন্যস্ত হবে না পাশাপাশি খুব সহজেই সকল কিছু নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শেষ করতে পারবেন ।

৬। পড়া শেষ হওয়া মাত্রই লিখুন ঃ

আমাদের মাঝে সবচেয়ে কষ্টকর বিষয় হচ্ছে আমরা লিখতে আগ্রহী না । কম লেখার কারনে প্রচুর বানান ভুল হয় এবং ভাল মার্কস পাওয়া যায় না । তাই কোন বিষয় পড়ার পর সেটা যত দ্রুত সম্ভব লেখার চেষ্টা করুন । পড়া শেষ হওয়া মাত্রই লেখার উপকারিতার প্রমান আপনি নিজেই পাবেন ।

৭। সময় নষ্ট করবেন না ঃ

সময় হচ্ছে মানুষের জীবনের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদ । আপনি যদি এই সময় কে অযথা নষ্ট করে ফেলেন তাহলে এর পরিনতি আপনাকেই ভোগ করতে হবে । সময় কে মূল্য দিতে শিখুন , পাশাপাশি অযথা বন্ধুদের সাথে  আড্ডা কমিয়ে দিন এতে আপনারেই উপকার হবে ।

৮। সকালে ঘুম থেকে উঠুন ঃ

সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠতে পারলে আপনারেই ভালো । কারন খুব সকালে ঘুম থেকে উঠলে শরীর ও মন ভালো থাকে । অন্য দিকে, সারাদিনের কাজ করার সময় পাওয়া যায় বেশি । তাই সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠার অভ্যাস করুন ।

৯। প্রয়োজন মোতাবেক বিশ্রাম ঃ

শুধু কাজ আর পড়ালেখা নিয়ে ব্যস্ত থাকলেই চলবে না আপনাকে নিতে হবে পর্যাপ্ত পরিমান বিশ্রাম । কারন ঘুম কম বা ঘাটতি হলে শরীরের নানা প্রকারের রোগ বা ক্ষতি হতে পারে। তাই পরিমান মত ঘুমান এবং পুরো দমে কাজ করুন ।

১০। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে হিসাব নিকাশ ঃ

সারাদিন কোথায় কি করলেন তার একটি শর্টকাট তালিকা করুন । আপনি সময়ের কতটুকু পর্যাপ্ত ব্যবহার করতে পেরেছেন এবং কতটুকু সময় অযথা নষ্ট করেছেন তা খুব সহজেই বের করতে  পারবেন।

উপরের সকল বিষয় গুলো পুনরায় পড়ুন এবং সঠিক ধারনা নিয়ে আজেই আপনি অন্যদের থেকে একধাপ এগিয়ে থাকুন 🙂

ধন্যবাদ ।

I'm Masud like as a simple person. I love writing, Researching, Creating new things etc . I think that PoraLekhaBD will be helpful for your study and your mental satisfaction. Don't miss any post from here. I'm ready to provide you excellent information.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *